আইনজীবীদের বিরুদ্ধে আনিত কিছু অভিযোগ ও তার জবাব প্রসঙ্গে

পোষ্ট লিখেছেনঃ | প্রকাশিত হয়েছেঃ বৃহস্পতিবার, জুলাই ০৫, ২০১৮ | ভয়েস বিভাগঃ
একথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, পৃথিবীর সর্বত্রই আইন পেশা একটি সম্মানজনক পেশা হিসেবে স্বীকৃত একেরয়েল প্রফেশন বলা হয় আমাদের দেশেও একজন সৎ আইনজীবীর পেশাগত মর্যাদা অত্যন্ত উচ্চেযদিও এক শ্রেণীর নিন্দুক লোক অতি সম্মানের এই পেশাকে বরাবরই খাটো করে দেখানোর প্রচেষ্টায় লিপ্ত আছে। তাদের জানা উচিত যে সম্মানের নিদর্শন স্বরূপ একমাত্রএডভোকেটবিচারকশব্দের পূর্বেলার্নেডবাবিজ্ঞশব্দটি ব্যবহৃত হয় অন্য কোন পেশাজীবীর নামের পূর্বে উপাধি দেয়া হয় না পেশায় স্বাধীন, আপন কাজে অনমনীয়, সমাজের বুদ্ধিদীপ্ত, সুশিক্ষিত, নির্ভীক এক সচেতন অংশের নামআইনজীবী




লর্ড ম্যাকমিলান এর মতেঅন্য কোন পেশা মানবজীবনকে এত স্পর্শ করে নাএকজন আইনজীবী তাঁর অবস্থানের প্রেক্ষিতে আদালতে অফিসার এবং বিশেষ অধিকার প্রাপ্ত শ্রেণীর অন্তর্গত সমাজে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় তাঁর অবদানও তাঁর মক্কেলকে পেশাগত উপদেশ প্রদানের জন্য জন সাধারণের উপর তাঁর প্রভাব অত্যন্ত প্রখর আর প্রভাবের কারণেই ভাল হোক অথবা মন্দ হোক যে কোন কাজেই সমাজের অন্যান্য ব্যক্তির চেয়ে একজন আইনজীবীর কর্মকান্ড, দৃষ্টান্ত আর্দশ সমাজের উপর অনেক বেশী কার্যকর

আইনজীবীগণ আদালতে বিনীতভাবে সততার সাথে তাঁর মক্কেলের পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের মাধ্যমে সঠিক সিদ্ধান্তে পৌছঁতে বিচারককে সরাসরি সহায়তা প্রদান করেন বিধায় আইনজীবীগণ আইন আদালতের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ অসংখ্য মৌলিক আইনগ্রন্থের প্রনেতা মরহুম গাজী শামসুর রহমান বলেন, কোন মানুষ ভ্রমের উর্দ্ধে নয়, সম্ভবত: বিচারকও নয় বিচারকের ভ্রম ধরিয়ে দিতে পারে শুধু সেই ব্যক্তি যিনি জ্ঞানে, গুণে, মর্যাদায় এবং অবস্থানে বিচারকের সমকক্ষ সেই ব্যক্তিই আইনজীবী 

যাইহোক আইনজীবীর পেশাগত মান মর্যাদা বা সামাজিক মান মর্যাদা নিয়ে যতই আলোচনা করা হোক না কেন সমাজের হিংসুক শ্রেণীর কিছু মানুষ আইনজীবীদেরকে খাটো করার চেষ্টায় রত আছে। আইনজীবীদের বিরুদ্ধে তাদের অভিযোগের শেষ নেই। আইন আদালত সম্পর্কে সাধারণ মানুষের ধারণা না থাকায় তারা খুব সহজেই সাধারণ জনগণকে বিভ্রান্ত করে থাকে।অত্যন্ত আশ্চর্য্য ও দুঃখের বিষয় এই যে একজন মানুষ যখন বিপদে পড়ে আইনজীবীর নিকটে আসেন তখন তার কাছে্ ঐ বিপদটি পৃথিবীর সবথেকে বড় বিপদ বলে মনে হয় এবং তিনি যেকোন উপায়ে ঐ বিপদ থেকে উদ্ধার পেতে চান। একজন আইনজীবী যখন তার পক্ষে লড়াই করে ঐ বিপদ থেকে তাকে উদ্ধার করেন, উদ্ধারের পর ঐ ব্যক্তিই আইনজীবীর বিরুদ্ধে নানান ধরণের অভিযোগ উঠান। এক্ষেত্রে আমি বলব ঐ ব্যক্তি অকৃতজ্ঞতার পরিচয় দেন। আইনজীবীদের বিরুদ্ধে সাধারণ জনগণ যেসকল অভিযোগ করে থাকে তা নিচে তুলে ধরা হলো।

ডাকাতির অভিযোগ

আইনজীবীদের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় ও আলোচিত অভিযোগ হলো যে, আইনজীবীরা তাদের মোয়াক্কেলদের পকেট ডাকাতি করে থাকেন।অভিযোগটি শুধু মিথ্যা এটাই নয় বরং আইনজীবীদের সম্পর্কে উদ্দেশ্যমূলকভাবে এমন গুজব সমাজে ছড়ানো হয়ে থাকে।তবে আগেই বলে রাখি প্রত্যেক পেশাতেই কিছু কুলাঙ্গার থাকে কিন্তু এই ধরণের কুলাঙ্গার ব্যক্তিদের কাজ কর্ম দিয়ে ঐ পেশার সকলকে বিচার করা অবুঝ, অজ্ঞতা ও নির্বুদ্ধিতার পরিচায় বৈ আর কিছু নয়।

যেহেতু আইনপেশায় আইনজীবীদের জন্য নির্ধারিত কোন ফি নেই।আর নির্ধারিত ফি থাকাটাও সম্ভব নয়। কারণ একেক মামলার গতি প্রকৃতি একেক রকম হয়ে থাকে।  কাজেই আইনজীবীরা মামলা-মোকদ্দমার গতি প্রকৃতি নির্ণয় করে ও মোয়াক্কেলের আর্থিক সামর্থ্যতার কথা বিবেচনা করে ফি নির্ধারণ করে থাকেন।কোন ব্যক্তি তার মামলা গ্রহণ করার পূর্বেই আইনজীবীর সহিত ফি এর ব্যাপারে চুড়ান্ত কথা বলে নিতে পারেন। ফি যদি ঐ ব্যক্তির সামর্থ্যের বাইরে চলে যায় তাহলে তিনি ঐ আইনজীবীকে বাদ দিয়ে তার পক্ষে অন্য আইনজীবী নিয়োগ করতে পারেন।কোন আইনজীবী কোন ব্যক্তির নিকট থেকে জোর পূর্বক ক্ষমতা নিয়ে মামলা পরিচালনা করেন না। একজন আইনজীবী তার অভিজ্ঞতা ও সিনিয়রিটি অনুযায়ী যে মামলা কম টাকায় পরিচালনা করতে রাজি হন, ঠিক একই মামলা অন্য আইনজীবী অভিজ্ঞতা ও সিনিয়রিটি অনুযায়ী  অধিক টাকায় পরিচালনা করতে রাজি হতে পারে্ন। সুতরাং একজন মোয়াক্কেলের অপশন আছে তিনি কোন আইনজীবীর নিকট যাবেন। কেমন ধরণের আইনজীবী তার মামলা লড়াইয়ের ক্ষেত্রে নিয়োগ দিবেন।

অনেকের অভিযোগ আছে যে আইনজীবী মোয়াক্কেলের মামলা আটকে রেখে মোয়াক্কেলের নিকট হইতে ইচ্ছামত টাকা পয়সা হাতিয়ে নেন।এই অভিযোগটিও সঠিক নয়। কারণ কোন আইনজীবী কোন মোয়াক্কেলের মামলা আটকে রাখতে পারেন না। মামলা চলাকালীন সময়ে যদি কোন ব্যক্তি দেখেন যে তার নিযুক্তিয় আইনজীবী তার নিকট থেকে নির্ধারিত ফি এর তুলনায় বেশি ফি দাবি করছেন বা চুক্তিমত কাজ করছেন না, তাহলে তিনি ঐ আইনজীবীকে বাদ দিয়ে তার কাছ থেকে অনাপত্তিপত্র নিয়ে স্বতঃস্ফুর্তভাবে নতুন কোন আইনজীবীকে নিয়োগ দিতে পারেন।যদি ঐ আইনজীবী অনাপত্তিপত্র দিতে রাজি না হন তাহলে ঐ ব্যক্তি সংশ্লিষ্ট বারে অভিযোগ করতে পারেন।সুতরাং জোর জবরদস্তি করে মামলা আটকে রেখে টাকা পয়সা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ সঠিক নয়।

ইচ্ছাকৃতভাবে মামলা দীর্ঘায়িত করার অভিযোগ

আইনজীবীদের বিরুদ্ধে আরেকটি অভিযোগ হলো আইনজীবীরা মোয়াক্কেলের নিকট হতে বেশি টাকা আদায়ের উদ্দেশ্যে ইচ্ছাকৃতভাবে মামলা দীর্ঘায়িত করে থাকেন।আইন আদালত সম্পর্কে স্বচ্ছ ধারণা না থাকার কারণে সাধারণ মানুষ আইনজীবীদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করে থাকেন। একটি মামলা দায়ের হওয়ার পরে আইন অনুযায়ী বিভিন্ন পদক্ষেপ ও প্রক্রিয়ার মাধ্যমে উক্ত মামলাটি নিষ্পত্তি হয়ে থাকে।এই আইনি প্রক্রিয়ার বাইরে গিয়ে একজন আইনজীবী উক্ত মামলা দ্রুত সময়ে নিষ্পত্তি করতে পারেন না। এমনকি একজন বিচারকের ক্ষেত্রেও তা সম্ভব নয়।প্রত্যেক আইনজীবী তার নিজ নিজ মোয়াক্কেলকে ন্যায়বিচার পাইয়ে দেওয়ার জন্যে আইনি লড়াই করে থাকেন। এক্ষেত্রে বাদীপক্ষের আইনজীবী কোন মামলায় তার নিজ মোয়াক্কেলের সুবিধার্থে যেমন বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে পদক্ষেপ নিয়ে থাকেন, তদরূপ বিবাদী পক্ষের আইনজীবীও তার মোয়াক্কেলের সুবিধার্থে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে পদক্ষেপ নিয়ে থাকেন।প্রত্যেক আইনজীবীই তার মোয়াক্কেলের সুবিধার্থে একটি মামলায় যা যা করণীয় তা করে থাকেন।কোন আইনজীবী ইচ্ছা করলেই কোন মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করতে পারেন না। কোন মামলার বাদীপক্ষ যদি মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তির জন্য পদক্ষেপ নেন, তাহলে বিবাদীপক্ষ উক্ত মামলা দীর্ঘায়িত করার জন্য সকল কৌশল অবলম্বন করবেন এটাই স্বাভাবিক। এ ক্ষেত্রে কোন পক্ষকেই দোষ দেওয়া যায় না। এ ছাড়া ফৌজদারি মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের ব্যর্থতা বা অবহেলার কারণে বছরের পর বছর পার হলেও মামলার স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হয় না। অনেক মামলায় তো বছরের পর বছর পার হয়ে যায় কিন্তু রাষ্ট্র পক্ষ স্বাক্ষীই হাজির করতে পারে না। ফলে মামলা নিষ্পত্তি হতে দেরি হয়। এ ক্ষেত্রে ডিফেন্স ল ইয়ারের করার কিছুই থাকে না। আরেকটি বিষয় লক্ষণীয় যে, কোন মামলার তারিখ বা দিন ধার্য্য করার ক্ষমতা একমাত্র সংশ্লিষ্ট আদালতের বিচারকের এখতিয়ারাধীন।তবে কোন বিশেষ কারণে বাদী ও বিবাদী একমত হলে কোন মামলায় পরবর্তী পদক্ষেপের জন্য তাদের নিজের সুবিধামত তারিখের জন্য বিচারকের নিকট অনুরোধ করতে পারেন।সুতরাং আইনজীবীরা মোয়াক্কেলের নিকট হতে বেশি টাকা আদায়ের উদ্দেশ্যে ইচ্ছাকৃতভাবে মামলা দীর্ঘায়িত করে থাকেন অভিযোগটি সঠিক নয়।

আইনজীবীদেরকে বাসা ভাড়া ও ব্যাংক লোন দেওয়ার ক্ষেত্রে অযাচিত ভয়

অনেক বাসার মালিক আইনজীবীদেরকে বাসা ভাড়া দিতে চান না। এই ভাড়া না দেওয়ার পিছনে সবচেয়ে বড় যে অজুহাত দেখানো হয় তাহলো আইনজীবীদেরকে বাসা ভাড়া দিলে তারা বাসার মালিককে বিভিন্ন আইনি জটিলতায় ফেলতে পারেন।তাছাড়া বাসার মালিক ইচ্ছে করলেই অন্য ভাড়াটিয়াদের মত আইনজীবীদেরকে  আইন বহির্ভূতভাবে উচ্ছেদ করতে পারবেন না।এমন ভয় থেকেই মূলতঃ বাসার মালিক আইনজীবীদেরকে বাসা ভাড়া দিতে চান না। একটু পর্যালোচনা করলেই স্পষ্ট হয় যে, বাসার মালিক আইনের তোয়াক্কা না করেই সাধারণ ভাড়াটিয়াদেরকে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করেন, ইচ্ছামত ভাড়া বাড়িয়ে দেন বা ভাড়াটিয়াদেরকে উচ্ছেদ করে থাকেন। এসব নিরীহ ভাড়াটিয়ারা কোন প্রতিবাদ করতে পারেন না।কিন্তু একজন আইনজীবী মুখ বন্ধ করে এসব অন্যায় মেনে নিতে পারেন না বিধায় প্রতিবাদ করে বসেন। এই আইনানুগ প্রতিবাদে ভীত হয়ে বাসার মালিকরা আইনজীবীদেরকে বাড়ি ভাড়া দিতে চান না।একটু লক্ষ্য করলে দেখা যাবে যে, আইনজীবীরা যদি আইন বহির্ভূতভাবে কোন বাসায় থাকতেন বা ভাড়া না দিতেন তাহলে অধিকাংশ আইনজীবীর বিরুদ্ধেই ভাড়াটিয়া উচ্ছেদের মামলা থাকত। কারণ ঢাকা শহরের অধিকাংশ আইনজীবী ভাড়া করা বাসায় থাকেন। কিন্তু বাস্তবে দেখা যায় বাসার মালিকরা সাধারণ ভাড়াটিয়াদের বিরুদ্ধেই উচ্ছেদের মামলা করার জন্য আইনজীবীদের দ্বারস্থ হয়ে থাকেন।কাজেই আইনজীবীদেরকে বাসা ভাড়া দিলে তারা বাসার মালিককে বিভিন্ন আইনি জটিলতায় ফেলতে পারেন এই অভিযোগটি নিতান্তই অমূলক।

তেমনিভাবে ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলি আইনজীবীদেরকে ঋণ দিতে চান না। কারণ তারা আইনজীবীদেরকে ঋণ দিতে নিরাপদ মনে করেন না ।আইনজীবীদেরকে ঋণ দিলে উক্ত ঋণ তারা কখনোই পরিশোধ করবেন না বা কোনভাবেই উক্ত ঋণ আদায় করা সম্ভব হবে না বলে তারা মনে করেন। কিন্তু অন্যান্য পেশার মানুষদেরকে ঋণ দেওয়ার ক্ষেত্রে নিরাপদ মনে করেন। অথচ আশ্চর্য্যের বিষয় হলো ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলো সাধারণ মানুষদেরকে ঋণ দিয়ে সেই ঋণ উদ্ধারেও ব্যর্থ হচ্ছে।

আইনজীবীরা সত্যকে মিথ্যায় এবং মিথ্যাকে সত্যই পরিণত করতে পারেন

আইনজীবীদের বিরুদ্ধে আরেকটি কমন অভিযোগ হলো যে, আইনজীবীরা সত্যকে মিথ্যা এবং মিথ্যাকে সত্যই পরিণত করতে পারেন। কিন্তু অভিযোগটি শুধুই মানুষের মনগড়া। পুরাতন দিনের বাংলা সিনেমা দেখে দেখে মানুষ আইনজীবীদের সম্পর্কে এমন ধারণা করতে শিখেছে। বাংলা সিনেমাগুলোতে দেখা যায় যে, নায়কের পক্ষে একজন আইনজীবী এবং ভিলেনের পক্ষে একজন আইনজীবী থাকেন। ভিলেনের পক্ষের আইনজীবী ভিলেন খুনি হওয়া সত্বেও বলেন তার মোয়াক্কেল নির্দোষ। তিনি খুন করেন নি। এইসব কাহিনী দেখে সাধারণ জনগণ ভেবে বসে যে, আইনজীবীরা সত্যকে মিথ্যা এবং মিথ্যাকে সত্য বলেন।একটা বিষয় জানা দরকার যে, মোয়াক্কেলকে মাস্টার অব ফ্যাক্টস এবং আইনজীবীকে মাস্টার অব ল বলা হয়।ঘটনাস্থলে বিচারক বা আইনজীবী কেউ উপস্থিত থাকেন না। তাই তাদের পক্ষে প্রকৃত ঘটনা জানা সম্ভব হয় না। এক্ষেত্রে মোয়াক্কেল আইনজীবীর নিকট যে ঘটনার বিবরণ দেন আইনজীবী সেই ঘটনাকে শৈল্পিক রূপ দিয়ে নিজের মত করে ধারাবাহিকভাবে বর্ণনা করে আদালতে উপস্থাপন করে থাকেন।আইনজীবীর দায়িত্ব হলো তার মোয়াক্কেলের কথা নিজের মত করে আদালতে উপস্থাপন করা। এক্ষেত্রে মোয়াক্কেল যদি মিথ্যা ঘটনার বর্ণনা দেন তাহলে তা আইনজীবীর জানার কথা নয়। মূলতঃ আইনজীবী যে ঘটনার বর্ণনা আদালতে উপস্থাপন করেন তা আইনজীবীর নিজস্ব কোন কথা নয়। সেই কথাগুলি তার মোয়াক্কেলের।আইনজীবী হলেন তার মোয়াক্কেলের প্রতিনিধি। প্রতিনিধি হিসেবে তার মোয়াক্কেলের কথাগুলি নিজের মুখে আদালতে উপস্থাপন করাই আইনজীবীর কাজ। আইনজীবীর সত্যবাদী বা মিথ্যাবাদী হওয়ার কোন সুযোগ নেই। আইনজীবী যেহেতু মাস্টার অব ল, সেহেতু তিনি শুধু আাদালতে আইনের ব্যাখা দিবেন। আর আইনগত বিষযে কোন মিথ্যা বলার সুযোগ নেই। যেহেতু এটা একটি দালিলিক বিষয়।

আরেকটি বিষয় লক্ষণীয় যে, বাদীপক্ষের আইনজীবী যেমন বিজ্ঞ, তেমনি আসামী পক্ষের আইনজীবীও বিজ্ঞ।বাদীপক্ষের আইনজীবী মিথ্যা বললে আসামী পক্ষের আইনজীবী মুখ বন্ধ করে সেটা মেনে নিবেন না। বা কোন আইনজীবী মিথ্যা বললেই বিচারক সেটা বিনাবাক্যে মেনে নিবেন এমনটি ভাবা যুক্তিযুক্ত নয়।একটি মামলার নিষ্পত্তি শুধুমাত্র আইনজীবীদের বক্তব্যের উপর নির্ভর করেই করা হয় না। স্বাক্ষ্য প্রমাণসহ অনেক বিষয় এর সাথে জড়িত।যেহেতু মোয়াক্কেলের মুখ থেকে শোনা ঘটনাই আইনজীবী আদালতে উপস্থাপন করেন সেহেতু সত্য বা মিথ্যার সংযোগ শুধুমাত্র মোয়াক্কেলের সাথেই থাকে।কোন আইনজীবী সত্যকে মিথ্যা বা মিথ্যাকে সত্য বলে উপস্থাপন করতে পারেন না।
সমাজে নিন্দুকের অভাব নেই। একজন আইনজীবী হিসেবে আমি প্রত্যক্ষ করেছি যে, অনেক আইনজীবী আছেন যারা গরীব মোয়াক্কেলের মামলা বিনা ফি তে বা নাম মাত্র ফি তে পরিচালনা করেন এবং তাদেরকে ভাল ফলাফলও পাইয়ে দেন।অনেক মানুষ আছে যারা অর্থের অভাবে বিনা বিচারে বছরের পর বছর জেল খাটছে।অনেক আইনজীবী আছেন যারা এই সব ব্যক্তিদের খুজে খুজে বের করে বিনা ফি তে তাদের মামলা পরিচালনা করে তাদেরকে মুক্ত করছেন। আইনজীবীরাই সমাজের অপরাধীদের উপযুক্ত শাস্তি দিতে আদালতকে সর্বোচ্চ সহায়তা করছেন। ধর্ষিতাকে ন্যায়বিচার পাইয়ে দিচ্ছেন। ঘর হারা কে ঘর ফিরিয়ে দিচ্ছেন।অনেককে অশান্তির নরক থেকে উদ্ধার করে শান্তির সুবাতাসে নিয়ে আসছেন আইনজীবীরাই।অন্যায়ভাবে চাকরী হারানো ব্যক্তিকে চাকরী ফিরিয়ে দিচ্ছেন আইনজীবীরাই।তাছাড়া নিন্দুকদের কাছে জানতে চাই বর্তমানে কোন পেশার মানুষের ভিতরে নৈতিকতা আছে?প্রত্যেক পেশার মানুষই তাদের স্ব স্ব পদের সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। সুযোগ পেলে একজন রিকশাওয়ালা থেকে শুরু করে সচিব, ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, পুলিশসহ সকল পেশার মানুষই প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সাধারণ জনগণের পকেট কাটতে দ্বিধা করেন না।কোন একটি নির্দিষ্ট পেশার দুই একজনের সাথে কারো তিক্ত অভিজ্ঞতা থাকতেই পারে। তাই বলে সেই অভিজ্ঞতার আলোকে ঐ পেশার সকলকে মূল্যায়ন করাটা বড় অন্যায় বলে আমি মনে করি।



সুপ্রিয় লিখিয়ে পাঠক! আপনি জেনে নিশ্চয় আনন্দিত হবেন যে, আইন সচেতন সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। সচেতন নাগরিক হিসেবে সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকে আমাদের এই উদ্যোগ। চাইলে আপনিও হতে পারেন এই গৌরবের একজন গর্বিত অংশীদার। আমাদের ব্লগে নিবন্ধন করে আপনিও হতে পারেন আমাদের সম্মানিত লেখক। লিখতে পারেন আইন-আদালত, পরিবেশ, ইসলামী আইন যেমন কোরআন, হাদিসের আইনগত বিষয়, প্রাকৃতিক আইন, বিভিন্ন অপরাধ সম্পর্কিত প্রতিবেদন বা অভিজ্ঞতা বা অনুভূতি, অন্যায়, দূর্নীতি, হয়রানী, ইভটিজিং, বেআইনী ফতোয়া, বাল্য বিবাহ ইত্যাদিসহ যাবতীয় আইনগত বিষয়াবলী নিয়ে। আমাদের ব্লগের সদস্য হোন আর হারিয়ে যান জ্ঞান বিকাশের এক উন্মুক্ত দুনিয়ায়!

আপনি কি আমাদের ব্লগে লিখতে আগ্রহী? তাহলে এখানে নিবন্ধন করুন। আপনার কি কিছু বলার ছিল? তাহলে লিখুন নিচে মন্তব্যের ঘরে।


পোস্টটি শেয়ার করুন

Previous
Next Post »